কলকাতা বিভাগে ফিরে যান

১লা আগস্ট শতবর্ষের ইস্টবেঙ্গল দিবস, চড়ছে উত্তেজনার পারদ

July 31, 2020 | 2 min read

আইএসএলে খেলা-না খেলা, ক্লাবে বিনিয়োগকারী পাওয়া-না পাওয়া! এমনই সব জটিলতার মধ্যে দাঁড়িয়ে শনিবার শতবর্ষের ইস্টবেঙ্গল দিবস। সন্দেহ নেই, সাম্প্রতিক অতীতে এমন অস্বস্তিকর আবহের মধ্যে পড়েননি লাল-হলুদ সমর্থকরা। দু’দিন আগেই মোহনবাগান দিবস উপলক্ষে পড়শি ক্লাবের লোগো জায়গা পেয়েছে ইতিহাসের টাইমস স্কোয়ারে। ইস্টবেঙ্গল দিবসেও কি তবে কোনও চমক অপেক্ষা করছে লাল-হলুদ সমর্থকদের জন্য?

ইস্টবেঙ্গল কর্তা দেবব্রত সরকার ভাঙবেন তবু মচকাবেন না। বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় ক্লাব তাবুতে বসেও আত্মবিশ্বাসী ভঙ্গিতে জানিয়ে দিলেন, “আইএসএল খেলার জন‍্য সব রকম চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে ক্লাব।” শেষ মুহূর্ত পর্যন্ত চেষ্টা চলবে বলেও দাবি দেবব্রতর। ভাব খানা শাহরুখের সেই ফিল্মি ডায়লগের মতই, ‘পিকচার আভি বাকি হ‍্যায়।’

শতবর্ষের ইস্টবেঙ্গল দিবস! এমনটা তো রোজ হবে না! প্রত‍্যেক বছর আসবে না! করোনা আতঙ্ক, লকডাউন! শতবর্ষের ইস্টবেঙ্গল দিবস পালনে বাধা অনেক। সাধ থাকলেও সাধ্য হচ্ছে না।

তবে পয়লা অগাস্ট ক্লাবের প্রতিষ্ঠা দিবসে শতবর্ষের সেলিব্রেশনের অন্যতম অঙ্গ হিসেবে আলমানাক প্রকাশ্যে আনছেন ইস্টবেঙ্গল ক্লাব ম্যানেজমেন্ট। সংগ্রহে রাখার মত আলমানাক। চমক ঠাসা। লাল-হলুদ সমর্থকদের গর্বের বুনিয়াদে ভরা। ইস্টবেঙ্গলের শতবর্ষের ওঠাপড়ার নানা কাহিনীর সঙ্গে এই পুস্তিকায় স্থান পাচ্ছে ক্লাবের সঙ্গে জড়িত ও সমাজের বিভিন্ন স্তরের সম্মানীয় ব্যক্তিত্বদের লাল-হলুদ নিয়ে আবেগ, অনুভূতি, অভিজ্ঞতা।

বাঙালি পাঠককুলকে উজান গঙ্গা, হরিণবাড়ি-র মত লেখা উপহার দেওয়া সাহিত্য একাডেমী সম্মান জয়ী সাহিত্যিক সমরেশ মজুমদারের হাত দিয়ে শনিবার সকাল দশটায় ক্লাব প্রাঙ্গণে উদ্বোধন করা হবে ক্লাবের শতবর্ষের আলমানাক। উপস্থিত থাকবেন রাজ্যের ক্রীড়ামন্ত্রী অরূপ বিশ্বাস ও ক্লাবের প্রতিষ্ঠাতা পরিবারের সদস্যরা। সব মিলিয়ে ঘণ্টাখানেকের অনুষ্ঠান। সরকারি বিধি মেনেই হাতেগোনা ব্যক্তির উপস্থিতিতেই অনুষ্ঠিত হতে চলেছে ক্লাবের শতবর্ষের ইস্টবেঙ্গল দিবস। দুনিয়া জুড়ে ছড়িয়ে থাকা লক্ষ লক্ষ সমর্থকদের কথা ভেবে নিজেদের ওয়েবসাইটে প্রকাশ করা হবে সমগ্র অনুষ্ঠানটি।

TwitterFacebookWhatsAppEmailShare

#East Bengal Club, #Football, #100 years East Bengal

আরো দেখুন