প্রযুক্তি বিভাগে ফিরে যান

মার্কিনী উইন্ডোজকে চ্যালেঞ্জ জানাতে তৈরি কলকাতার ‘অসাম’

August 13, 2021 | 2 min read

মার্কিনী উইন্ডোজকে চ্যালেঞ্জ জানাতে তৈরি কলকাতার ‘অসাম’। একেবারে উইন্ডোজ-এর মতো অপারেটিং সিস্টেম তৈরি করে তাক লাগিয়ে দিয়েছে রাজ্য প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় বা ম্যাকাউট।

মাইক্রোসফটের অপারেটিং সিস্টেমের মতো ‘অসাম’ বহুমূল্য নয়, বরং একদম ফ্রি। আর তাতে অত্যাধুনিক কম্পিউটার তো বটেই, পুরনো মডেলের কম্পিউটারও চলবে। ফলে কমানো যাবে ই-বর্জ্যের পরিমাণও।
উপাচার্য সৈকত মৈত্রর তত্ত্বাবধানে বিশ্ববিদ্যালয়ের তথ্যপ্রযুক্তি বিভাগ এই অপারেটিং সিস্টেমটি তৈরি করেছে। দায়িত্বে থাকা প্রীতিময় সান্যাল জানান, এই প্রযুক্তি যাতে সাধারণের কাজে লাগে, তা মাথায় রাখার কথা বলেছিলেন উপাচার্য। সেই অনুযায়ী কাজ এগিয়েছে। এটি এমনভাবে তৈরি করা হয়েছে, যাতে ১ জিবি র‌্যাম এবং ডুয়াল কোর বা কোর টু ডুয়ো প্রসেসরে সিস্টেমটি চালানো যায়। আর এটাই এই অপারেটিং সিস্টেমের ইউএসপি। বাড়িতে অনেকেরই পুরনো কম্পিউটার পড়ে রয়েছে, যাতে কোনও অত্যাধুনিক অপারেটিং সিস্টেম চালানো সম্ভব নয়। এর জন্য বেশি  র‌্যানডম অ্যাক্সেস মেমরি বা র‌্যাম প্রয়োজন। তা পুরনো কম্পিউটারে থাকে না। প্রসেসরও দুর্বল থাকে। এই যান্ত্রিক উপাংশগুলি সব ক্ষেত্রে পরিবর্তন করা যায় না বলে কম্পিউটারগুলি পড়ে থাকে এবং দূষণের ঝুঁকি বাড়ায়। যে কোনও বৈদ্যুতিক যন্ত্রেই সীসা সহ অন্যান্য ভারী ধাতু থাকে। যেগুলি ক্ষতিকর। না চালিয়ে কম্পিউটার ফেলে রাখলে সেখান থেকেও দূষণ হতে পারে। এছাড়া বহু স্কুল, আর্থিকভাবে অনগ্রসর ছাত্ররা টাকার অভাবে নয়া প্রযুক্তির কম্পিউটার কিনতে পারে না। তাদের কম্পিউটারে দিব্যি চলবে এই প্রসেসর।

অনেকেই আছেন টাকার অভাবে পাইরেটেড বা জাল অপারেটিং সিস্টেমে কম্পিউটার চালান। ইন্টারনেট পরিষেবা চালু থাকলে মাইক্রোসফটের অ্যান্টি পাইরেসি পলিসি সেগুলিকে খুঁজে বের করে নিষ্ক্রিয় করে দেয়। এটা কারও দিক থেকেই কাম্য নয়। তবে বিশ্ববিদ্যালয়ের তৈরি অপারেটিং সিস্টেমে সেই সমস্যা নেই। সেই কারণেই এটির নাম দেওয়া হয়েছে ‘অসাম’ বা অপারেটিং সিস্টেম বাই দি ইউনিভার্সিটি অব ম্যাকাউট।

তার মানে কি শুধু পুরনো কম্পিউটার চালানোর জন্যই উপযুক্ত এই অপারেটিং সিস্টেম? প্রীতিময়বাবু জানান, একেবারেই তা নয়। গ্রাফিক্যাল ইউজার ইন্টারফেস নির্ভর অসামে অফিস প্যাকেজ সহ পাইথন, জাভা, সিপ্লাসপ্লাস প্রভৃতি প্রোগ্রামিং ল্যাঙ্গুয়েজও থাকবে। বিনা বাধায় চালানো যাবে ইন্টারনেট। এর ফলে একদিকে যেমন পুরনো কম্পিউটারগুলি প্রাণ ফিরে পাবে, অন্যদিকে তেমনই অত্যাধুনিক প্রযুক্তির কম্পিউটারও ‘অসাম’ হয়ে উঠবে। বিশ্ববিদ্যালয়ের সঙ্গে যোগাযোগ করলে বিনামূল্যেই মিলবে এই অপারেটিং সিস্টেমটি।

TwitterFacebookWhatsAppEmailShare

#operating system, #MAKAUT

আরো দেখুন