দেশ বিভাগে ফিরে যান

এক দশক পার! কতটা পূরণ হল মোদীর ২০১৪ সালের ইস্তাহারের প্রতিশ্রুতি?

July 6, 2023 | 3 min read

নিউজ ডেস্ক, দৃষ্টিভঙ্গি: গুচ্ছ গুচ্ছ প্রতিশ্রুতি দিয়ে ক্ষমতায় এসেছিল বিজেপি। দেশের প্রধানমন্ত্রীর কুর্সিতে বসেছিলেন মোদী। তারপর প্রায় এক দশক পার হতে চলল। কিন্তু কতটা পূরণ হল সে’সব প্রতিশ্রুতি? নাকি ইস্তাহারেই আটকে থেকে গেল ভারতবাসীদেরকে দেওয়া কথা?

ঘাড়ে নিঃশ্বাস ফেলছে লোকসভা ভোট। তার আগে দেখে নেওয়া যাক, প্রতিশ্রুতির কতটা বাস্তবায়ন হল?

মূল্য বৃদ্ধি:

২০১৪ সালের ইস্তাহারে বিজেপি দাবি করেছিল, তারা ক্ষমতায় এলে দ্রব্য মূল্য আম জনতার নাগালে নিয়ে আসা হবে। মূল্য বৃদ্ধিই ছিল অন্যতম বড় রাজনৈতিক ইস্যু। কিন্তু মোদী আমলে কি কমল জিনিসের দাম?

২০২২ সালের এপ্রিলে রিটেলে মূল্য বৃদ্ধি পৌঁছল ৭.৮ শতাংশে যা বিগত আট বছরে সর্বোচ্চ। অন্যদিকে, হোলসেলের ক্ষেত্রে ওই একই সময় তা পৌঁছে গেল ১৫.০৮ শতাংশে। যা গত নয় বছরে সর্বাধিক। বেড়েছে আম জনতার সংসার চালানোর খরচ। এক বেসরকারি সমীক্ষক সংস্থার রিপোর্ট বলছে, মানুষ সংসার চালাতে সঞ্চয় ব্যয় করতে আরম্ভ করেছেন। ২০২৩ সালে প্রথম ছয় মাসে, ভারতীয়রা বিগত ত্রিশ বছরের মধ্যে সবচেয়ে কম সঞ্চয় করেছে। নিত্য প্রয়োজনীয় জিনিস কিনতে জমানো টাকা খরচ করছে দেশবাসী। মূল্য এতটাই বেড়ে গিয়েছে যে, বহু মানুষ সামান্য প্রয়োজন মেটানোর জিনিসটুকুও কিনতে পারছেন না। বেশ কিছু রিপোর্ট, সমীক্ষা বলছে, মোদী আমলে দারিদ্রতা এবং অসাম্যতা বৃদ্ধি পেয়েছে।

কর্মসংস্থান:

যেকোনও দেশের আর্থিক উন্নতি ও সামাজিক সুরক্ষার জন্য নয়া কর্মসংস্থান সৃষ্টি করা আবশ্যক।
ক্ষমতায় আসা আগে বিজেপি প্রতিশ্রুতি দিয়েছিল, প্রতি বছর চাকরি হবে। তরুণরা চাকরি পাবেন। নতুন কাজের সুযোগ হবে। গ্রামীণ এলাকায় কর্মসংস্থান বাড়বে। কর্মসংস্থান সৃষ্টির জন্য উৎপাদন শিল্প ও পর্যটনে বিশেষ গুরুত্ব দেওয়া হবে।

কিন্তু আদতে মোদী আমলে শেষ চার-সাড়ে চার দশকে সবচেয়ে বেশি বেকারত্ব দেখল দেশ। বিশেষজ্ঞদের মতে, সরকার কেবল প্রোডাকশন লিংকড ইন্টেন্টিভ স্কিমের আওতায় কাজ দিতে ব্যস্ত। ক্ষুদ্র শিল্প ও কৃষিক্ষেত্রে কর্মসংস্থানের বন্দোবস্ত না করতে পারলে, দেশে কর্ম সংস্কৃতির পরিবেশ সৃষ্টি করা যাবে না।

২০১৯-এর লোকসভা ভোটের আগে মোদী, এক সাক্ষাৎকারে পকোড়ার দোকান দেওয়া কথা বলেছিলেন। তাঁর প্রশ্ন ছিল পড়োরার দোকান কেন কর্মসংস্থান হিসেবে গণ্য হবে না? এর বিরুদ্ধে প্রতিবাদ হয়েছিল। চাকরিপ্রার্থীরা ‘আচ্ছে দিন পকোড়া শপ’ নামে দোকান খুলেছিলেন। মোদী আমলেই ২০১৭-১৮-তে পঁয়তাল্লিশ বছরে দেশের বেকারত্বের হার সর্বোচ্চ জায়গায় পৌঁছেছিল। সে’সময় তিনি দেশবাসীকে পকোড়া ভাজার পরামর্শ দিচ্ছিলেন।

সেন্টার ফর মনিটরিং ইন্ডিয়ান ইকোনমির প্রধান চলতি বছরের মে মাসে জানিয়েছিলেন, ভারতে কাজের সংখ্যা বাড়ছে না। ভাল মানের কাজের সংখ্যা দেশে কমছে। ২০১৭ সাল থেকেই সংসার দেশের ক্রমবর্ধমান বেকারত্বের হার নিয়ে চিন্তিত। চলতি বছর কেন্দ্রীয় বাজেটে একশো দিনের কাজের জন্যে বরাদ্দ কমানো হয়েছে। অথচ গ্রামীণ ভারতের অর্থনীতি দাঁড়িয়ে রয়েছে একশো দিনের কাজের উপর। সেখানে সরকারের এহেন পদক্ষেপের যৌক্তিকতা খুঁজে পাননি অর্থনীতিবিদরা।

স্মার্ট সিটি:

স্মার্ট সিটি মিশনের আওতায়, ২০১৫ সালের জুনে বলা হয়েছিল দেশে একশোটি স্মার্ট সিটি তৈরি করা হবে। সে’সব শহরে অত্যাধুনিক সুযোগ-সুবিধা থাকবে, জীবন যাপন অনেক বেশি স্বাচ্ছন্দ্যের হবে। পানীয় জল, যোগাযোগ, বিদ্যুৎ, ইত্যাদি পরিষেবা উন্নত হবে। পরিবেশ রক্ষার দিকটিও থাকবে। ঠিক হয়েছিল, স্মার্ট সিটি মিশনের আওতায় উন্নত শহরগুলিতে আরও উন্নততর করে গড়ে তোলা হবে। নতুন তৈরি হাওয়া শহরগুলিকে এই আওতায় নেওয়া হবে না। কিন্তু স্মার্ট সিটির সংজ্ঞা অদ্যাবধি স্পষ্ট নয়।

২০২১ সালে স্মার্ট সিটি মিশনের মেয়াদকাল বাড়িয়ে ২০২৩-এর জুন অবধি করা হয়। ফের তা বাড়িয়ে আগামী বছরের জুনে নিয়ে যাওয়া হচ্ছে কিন্তু কাজ একটুও এগোচ্ছে না। একশোর মধ্যে কুড়িটিরও কাজ সম্পূর্ণ হয়নি।

দেরাদুন স্মার্ট সিটি মিশনের আওতায় ২০১৫ থেকে ২০২২-র মধ্যে ১৪০০ কোটি টাকা খরচ হয়েছে। কিন্তু উত্তরাখণ্ডের সমস্যা মেটেনি। বর্জ্র নিষ্কাষণের সমস্যা মেটেনি, জানবসতি বাড়ছে দ্রুত গতিতে, বস্তি তৈরি হচ্ছে আজও। বিজেপি ইস্তাহারে দাবি করেছিল, দশ বছরে স্মার্ট সিটিগুলি ২৫ কোটি কর্মসংস্থান সৃষ্টি করবে। কিন্তু কিছুই হয়নি।

নমামী গঙ্গে:

২০১৪ সালের মে মাসে মোদী পার্লামেন্টে দাঁড়িয়ে বলছিলেন, “আমি মা গঙ্গার সেবা করতে চাই।” পরের মাসে কুড়ি হাজার কোটি টাকার নামামী গঙ্গে প্রকল্প হাতে নেয় মোদী সরকার। উদ্দেশ্য, গঙ্গাকে বাঁচানো। সাফ কথায়, দূষণ ও আবর্জনা মুক্ত করা। কিন্তু ২০১৮ তে জানানো হয়ে ২০২০ তেও দূষণ মুক্ত গঙ্গার স্বপ্ন সার্থক হবে না। গত বছর জুলাইতে সমানে আসে, গঙ্গা অনেক বেশি দূষিত হয়ে পড়েছে। উত্তরপ্রদেশের দূষণ নিয়ন্ত্রণ পর্ষদ ২০১৯ সালে জানায়, প্রয়াগরাজের কাছে গঙ্গার উচ্চপ্রবাহ ও নিম্নপ্রবাহ অত্যন্ত দূষিত হয়ে পড়েছে। এটি স্নানের অনুপযোগী। করোনার দ্বিতীয় ঢেউতে উত্তরপ্রদেশের গঙ্গায় শব ভেসে যাওয়ার দৃশ্য আজও ভারতবাসীর মনে তাজা।

ম্যানুয়াল স্ক্যাভেঞ্জিং:

(ম্যানহোল, নর্দমা, সেপ্টিক ট্যাঙ্ক সাফাই কর্মী)
বিজেপি ইস্তাহারে দাবি করেছিল, তারা সরকার গড়লে দেশে থেকে ম্যানুয়াল স্ক্যাভেঞ্জিং ব্যাপারটাই নাকি উবে যাবে। কিন্তু এটিও না পূরণ হাওয়া প্রতিশ্রুতি হয়ে রয়ে গিয়েছে। ২০১৭ থেকে ২০২২ সালের মধ্যে নর্দমা, সেপ্টিক ট্যাঙ্ক সাফ করতে গিয়ে প্রায় ৩৩০ জন সাফাই কর্মীর মৃত্যু হয়েছে। ২০১৩ সালের ‘Prohibition of Employment as Manual Scavengers and their Rehabilitation Act, 2013’ আইন অনুযায়ী ম্যানুয়াল স্ক্যাভেঞ্জিং আর বৈধ নয়। কিন্তু দেশের বিভিন্ন প্রান্ত এখন মানুষই ম্যানহোলে নেমে সাফাইয়ের কাজ করে।

হিন্দুর এক প্রতিবেদন অনুযায়ী, খোদ মোদীর রাজ্য গুজরাতে চলতি বছরের মার্চ থেকে এপ্রিলের মধ্যে আটজন সাফাই কর্মী মারা গিয়েছেন। ম্যানুয়াল স্ক্যাভেঞ্জিংয়ের কারণে, ১৯৯৩ থেকে দেশের প্রায় এক হাজার সাফাই কর্মীর মৃত্যু হয়েছে। যদিও আদতে বেসরকারি মতে সংখ্যাটা আরও বেশি বলে দাবি করা হয়। মোদী এই অমানবিক পেশার অবলুপ্তি ঘটানোর প্রতিশ্রুতি দিলেও, বাস্তবে তা পূরণ হয়নি।

TwitterFacebookWhatsAppEmailShare

#Modi Government, #manifesto, #BJP Manifesto, #2024 Lok Sabha Elections, #bjp

আরো দেখুন