দেশ বিভাগে ফিরে যান

RBI-র দেওয়া দেশের কর্মসংস্থানের পরিসংখ্যান নিয়ে প্রশ্ন তুলছেন অর্থনীতিবিদরা

July 10, 2024 | 2 min read

নিউজ ডেস্ক, দৃষ্টিভঙ্গি: রিজার্ভ ব্যাংক অব ইন্ডিয়ার (আরবিআই) বেকারত্বের পরিসংখ্যান নিয়ে প্রশ্ন তৈরি হয়েছে। সেই সঙ্গে বিনিয়োগ ও নতুন বিনিয়োগ, এসব নিয়েও আছে অস্বস্তি। এই পরিস্থিতিতে নতুন সরকারের প্রথম পূর্ণাঙ্গ বাজেটের আগে অর্থনীতিবিদদের সঙ্গে বৈঠক করবেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী।

যতটা প্রচার করা হচ্ছে, মোটেই অত বেকারত্ব নেই দেশে! এমনটাই মনে করে নরেন্দ্র মোদী সরকার। আর সেই দাবিকে ইন্ধন দিতে মাঠে নেমে পড়েছে আরবিআই। মোদী জমানায় কর্মসংস্থানের ‘উজ্জ্বল’ সরকারি পরিসংখ্যান তুলে ধরে তারা প্রকাশ করেছে নয়া রিপোর্ট। তাতে স্পষ্ট ভাষায় জানানো হয়েছে, কৃষি, পরিষেবা, উৎপাদন অথবা নির্মাণ—সবক্ষেত্র মিলিয়ে মাত্র এক বছরের মধ্যে চার কোটিরও বেশি কর্মসংস্থান হয়েছে! এই প্রথম এমন পরিসংখ্যান দিয়ে রিপোর্ট পেশ করল আরবিআই। কেন্দ্রীয় ব্যাঙ্কের আচমকা এই মোদী-প্রশস্তিতে অবাক বিরোধী থেকে অর্থনীতিবিদরা।

বিশেষজ্ঞদের প্রশ্ন, এত কর্মসংস্থান হলে দেশে কেন তার প্রভাব দেখা যাচ্ছে না। সরকারি পরিসংখ্যানই বলছে, গত অর্থবছরে ক্রয় বৃদ্ধির হার ছিল মাত্র ৪। এ ছাড়া আরবিআইয়ের হিসাব অনুযায়ী, ২০১৯-২০ সালে ৪ দশমিক ২ কোটি এবং ২০২০-২১ সালে ৩ দশমিক ১ কোটি নতুন কর্মসংস্থান হয়েছিল। অথচ তখন ছিল কোভিডের বছর; বিপুলসংখ্যক মানুষ তখন রুটিরুজি হারিয়েছিলেন। সম্প্রতি অনুষ্ঠিত লোকসভা নির্বাচনের আগে বিরোধী দলগুলো দেশের ক্রমবর্ধমান বেকারত্ব নিয়ে সরব হয়েছিল। তৃতীয় দফায় ক্ষমতায় এসে মোদী সরকার কাজ শুরুর পর বেকারত্ব নিয়ে অস্বস্তি আরও বেড়েছে। সম্প্রতি সিটি গ্রুপের এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ৭ শতাংশ আর্থিক বৃদ্ধি হলেও ভারতে যথেষ্ট কর্মসংস্থান হয়নি।

বিশেষ করে দেশের তরুণদের কর্মসংস্থানের অবস্থা আরও শোচনীয়। সম্প্রতি অর্থনীতিবিদ কৌশিক বসু বলেছেন, ভারতে তরুণদের বেকারত্বের হার বিশ্বে সবচেয়ে বেশি। সিএমআইইর পরিসংখ্যানে দেখা গেছে, গত মে মাসে ভারতে তরুণদের বেকারত্বের হার ছিল ৪৫ দশমিক ৪ শতাংশ। এ প্রসঙ্গে নিজের এক্স হ্যান্ডেলে কৌশিক বসু লেখেন, ভারতে তরুণদের এই বেকারত্ব বিপজ্জনক পর্যায়ে চলে গেছে। এটা অর্থনীতির গভীর ক্ষতি করছে।

দেশে নতুন বিনিয়োগ নিয়েও প্রশ্ন উঠেছে। গত এপ্রিল-জুনে শিল্প প্রতিষ্ঠানের ঘোষিত নতুন বিনিয়োগ মাত্র ৪৪ হাজার ৩০০ কোটি টাকায় নেমে এসেছে, ২০ বছরের মধ্যে যা সর্বনিম্ন। মাঝারি শিল্পগুলোর সংগঠন দ্য কনফেডারেশন অব মিডিয়াম ইন্ডাস্ট্রিজ ইন ইন্ডিয়া বা সিএমআইইর পরিসংখ্যানে বলা হয়েছে, গত বছর ওই তিন মাসে ৭ দশমিক ৯ লাখ কোটি টাকার করপোরেট বিনিয়োগ ঘোষণা করা হয়েছিল। এ বছরের জানুয়ারি-মার্চেও তা ছিল ১২ দশমিক ৩৫ লাখ কোটি টাকা।

পরিসংখ্যান বলছে, ২০১৪ ও ২০১৯ সালের ভোটের সময় অনেক বেশি বিনিয়োগ ঘোষিত হয়েছে। বিরোধী দলের নেতারা বলছেন, ‘নরেন্দ্র মোদী ও বিজেপি লোকসভায় সংখ্যাগরিষ্ঠতা হারিয়েছে। বিনিয়োগকারীদের আস্থাও কমেছে, মোদী সরকার এখন বড় ধরনের চ্যালেঞ্জের মুখোমুখি।’

TwitterFacebookWhatsAppEmailShare

#employment, #Employment growth rate, #India, #Narendra Modi, #RBI

আরো দেখুন